আপনার শিশু কি অতিরিক্ত প্রস্রাব করে?

0

*শিশুদের অতিরিক্ত প্রস্রাব করার পেছনে নানাবিধ  সমস্যা থাকতে প্রথমত, শিশুর পানি পানের পরিমাণ কেমন  সেটা জানা দরকার। আপনার শিশু অতিরিক্ত প্রস্রাব করছে? প্রথমত, আপনাকে আগে জানতে হবে দৈনিক কতটুকু প্রস্রাব শিশুর জন্য স্বাভাবিক।*

*১ বছর বয়সী শিশুর দৈনিক স্বাভাবিক প্রস্রাবের পরিমাণ ৫০০ মিলি। সাত-আট বছর বয়সী ১ লিটার ও পনেরো বছর বয়সী ছেলে মেয়েদের ১.৫ লিটার। স্কুলে যাওয়ার আগের বয়সে একটি শিশু দিনে ১ লিটার ও স্কুল বয়সের শিশুটি দিনে ২ লিটারের বেশি প্রস্রাব করলে সে বেশি প্রস্রাবজনিত সমস্যায় ভুগছে কি না, পর্যবেক্ষণ করা যায় যায়।*

*শিশুদের অতিরিক্ত বাথরুমে যাওয়া ও প্রস্রাব করার পেছনে অনেক কারণ থাকতে পারে। প্রথমত,, তার পানির পিপাসা কেমন সেটা জানতে হবে। শিশু বেশি পরিমাণে পানি পান করলে বেশি প্রস্রাব হবেই, এটা স্বাভাবিক। তবে কোনো কোনো শিশুর ক্ষেত্রে এটি এক ধরনের আচরণজনিত সমস্যা হতে পা‌রে, যাকে সাইকোজেনিক বলা হয়। আবার পিপাসা নিয়ন্ত্রণকেন্দ্র মস্তিষ্কের হাইপোথেলামাসে বা এর আশপাশে কোনো টিউমার, আঘাত, সংক্রমণ প্রভৃতি কারণেও হতে পারে।*

*শিশুদের ডায়াবেটিস হয় না, এই কথা বিশ্বাস করবেন না। শিশুদেরও ডায়াবেটিস হয়।  সাধারণত শিশুদের যে ডায়াবেটিস হয় তাকে বলা হয় টাইপ-১ ডায়াবেটিস মেলিটাস। এতে শিশুর অতিরিক্ত প্রস্রাব হতে থাকে, শিশু দ্রুত ওজন কমে যায়, আর শিশু ঘনঘন পানি পান করে। এসময় খুব দ্রুত শিশুর স্বাস্থ্য নষ্ট হয়ে একসময় অচেতন হয়ে পড়তে পারে। এ ছাড়া কিডনির দীর্ঘমেয়াদি রোগ বা ক্রনিক রেনাল ফেলিওর কারণেও অতিরিক্ত প্রস্রাব হতে পারে।*

তাছাড়া শিশুদের অতিরিক্ত প্রস্রাব করার পেছনে আরও নানাবিধ সমস্যা থাকতে পারে

*প্রস্রাবের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণকারী এডিএইচ হরমোনের নিঃসরণে সমস্যা বা কার্যকারিতায় সমস্যা দেখা দিলে রোগটিকে বলা হয় ডায়াবেটিস ইনসিপিডাস। মেনিনজাইটিস, এনকেফালাইটিস প্রভৃতি মস্তিষ্কের তীব্র সংক্রমণজনিত অসুখের প্রক্রিয়াজনিত জটিলতায় ওই হরমোন উৎস নষ্ট হয়ে যেতে পারে। বংশগত বা জেনেটিক কিছু রোগে কিডনি অকার্যকর হতে পারে, আবার হতে পারে নেফ্রোজেনিক ডায়াবেটিস ইনসিপিডাস। রক্তে ক্যালসিয়াম উচ্চমান বা পটাশিয়াম ঘাটতি একই পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে। কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় বেশি প্রস্রাব হয়। যেমন থিওফাইলিন, ডাইইউরেটিকস।*

কী করবেন?

*ঠান্ডা আবহাওয়াতে অথবা বৃষ্টির দিনে শিশু ঘনঘন বাথরুমে যেতে পা‌রে। বারবার ডায়াপার পরিবর্তন করতে হতে পারে, এটি স্বাভাবিক। কিন্তু যদি দিনে স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেশি প্রস্রাব হতে থাকে, বা এর সঙ্গে শিশুর ওজন হ্রাস, পানিশূন্যতা বা অন্য কোনো উপসর্গ থাকে, দ্রুত ভাল শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন।*

লিখেছেন: শিশুস্বাস্থ্য বিভাগ, সাবেক বিভাগীয় প্রধান, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ।

Share:
Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *